Thread Rating:
  • 0 Vote(s) - 0 Average
  • 1
  • 2
  • 3
  • 4
  • 5
বড়দের কৌতুক সংগ্রহ (Adult Bengali Jokes)
#1
বড়দের কৌতুক সংগ্রহ (Adult Bengali Jokes)

সাকির আবার পকেটে হাত দেয়। মানি ব্যাগ বের করে আরও একটি ৫০০ টাকার নোট বের করে টেবিলে রেখে বলে ওটা দেখালে এটা দেব। রমা ভাবে লজ্জা যা পাওয়ার তা তো পেয়েছি। এখন একটা আর দুটোর মধ্যে পার্থক্য কি ? টাকাটা একহাত দিয়ে নিয়ে দুটো ব্রেষ্ট বের করে দেয়। সাকির চোখ ফেরাতে পারে না। অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে দেখতে থাকে রমার সুন্দর্যমন্ডিত ব্রেষ্ট দুটি।
সাকির কতক্ষন তাকিয়ে ছিল তা বলতে পারবে না। যখন রমা ব্রেষ্ট দুটি ঢাকতে যাবে তখন বলে-প্লিজ ঢাকবেন না। তাড়াতাড়ী মানিব্যাগ বের করে ২ট ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-আপনি ওখানে দাড়িয়ে উপরের সব কাপড় খুললে এগুলো দেব। রমাকে যেন নেশায় পেয়েছে। ও সাকিরের হাত থেকে ছৌ মেরে টাকাটা নিয়ে উঠে দাড়িয়ে ব্লাউজ আর ব্রাটি খুলে পাশে রেখে দেয়। রমা যখন ওর ব্লাউজ আর ব্রা খুলছিল তখন ওর দু হাত উপরে উঠে যায়। সাকির লক্ষ করে রমার ফরসা হাতের নিচে কালো লোমে ঢাকা বোগলতলার লোম গুলো চিক চিক করছে। রমার লোম দেখে সাকিরের সেক্স ভীষণভাবে বেড়ে যায়। সাকির দেখে রমার খোলা দুধ দুটি বেশ বড় কিন্তু খুব সুন্দর। সাকির টেবিলে রাখা গ্লাস থেকে এক নিঃশ্বাসে পানিটুকু খেয়ে ফেলে।
সাকির আবার মানি বেগে হাত দেয়। আরও ২টি ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-এবার নিচের জিনিসটি দেখালে এটা দেব। রমার যেন কোন দিকে খেয়াল নেই। সাকিরের হাত থেকে টাকাটি নিয়ে প্রথমে শাড়িটি খুলে ফেলে। সাকির আসল জিনিসটি দেখার জন্য উগ্রিব হয়ে বসে থাকে। তারপর রমা ওর পেটিকোটটি ধীরে ধীরে উপরের দিকে তুলতে থাকে। যতই উপরে উঠছে সাকির ততই উত্তেজিত হয়ে উঠছে। রমার ফরসা দুটি মোট মোটা মসৃন রান দেখতে পাচ্ছে সাকির। আরও একটু উপরে আরও। একসময় পেটিকোটটি মাজার সীমারেখা ছাড়িয়ে উপরে উঠে গেল। সাকির লক্ষ করলো রমার দুরানের মাঝে যে ত্রিকোনাকার জায়গাটি দেখার জন্য এতো ব্যকুল হয়েছিল সে জায়গাটি কালো লোমে ঢাকা পড়ে আছে। অনেক দিন সেভ করেনা বলে বেশ বড় বড় হয়েছে। দুর থেকে শুধু ছবির মত কালো জায়গাটিই নজরে পড়লো। সাকিরের নিঃশ্বাস ঘন ঘন পড়ছে। ও হঠাৎ বলে উঠে ঘুরে দাড়ান। কণ্ঠস্বর শুনে ও নিজেই যেন চিনতে পারছে না। এ যেন ওর কষ্ঠশ্বর নয়। রমা ঘুরে ওর দিকে পিছন দিয়ে দাড়ায়। সাকির দেখছে মাথা থেকে থরে থরে চুলের গোছা নেমে রমার পুরো পাছাটি ঢেকে ফেলেছে। চুলের ফাক দিয়ে রমার ফরসা ভরাট পাছাটি সামান্য দেখা গেল। রমা এবার আবার ঘুরে দাড়াল।
সাকির এবার শেষ তীর ছুড়লো। ওর ব্যাগ থেকে ৪টি ৫০০ টাকার নোট বের করে বলে-আমাকে খুশি করলে এটা পুরোটাই দিয়ে দেব। রমার অবস্থা তখন বেশ খারাপ। কারণ একজন পুরুষ মানুষের সামনে এভাবে একের পর এক বিবশ্র হওয়া খুব স্বাভাবিক কাজ নয়। রমা মুখে কিছু না বলে পেটিকোটটি ছেড়ে দিয়ে সাকিরের হাত থেকে টাকাটা নিয়ে নিল। শুধু টাকাটা ধরা পর্যন্ত সময়। এরই মধ্যে সাকির উঠে এক লাফে রমাকে জড়িয়ে ধরে রমার দুঠোটে চুমুতে চুমুতে পাগল করে ফেলল। রমার দুঠোটের মাঝে ও জিব ঢুকিয়ে দিয়ে দুহাত দিয়ে রমার শরীরকে দলিত মথিত করতে লাগলো। রমা এখন আর রমাতে নেই ও ভুলে গেছে ও কারও স্ত্রী। ও আদিম উন্মাদনায় সাকিরের ঢুকিয়ে দেয়া জিবটি চুষতে লাগলো। সাকির ইতিমধ্যে রমার পুষ্ট স্পঞ্জের মত ব্রেষ্ট দুটি ধরে চিপতে শুরু করেছে। রমাকে পাগলের মত বুকের মধ্যে পিষে ফেলছে সাকির। রমা ওকে একটু শান্ত হতে বলল। সাকির তখন উন্মাদ। ঠোট পেরিয়ে সাকির তখন রমার টকটকে সাদা ফুলকপির মত ফুটে থাকা ব্রেষ্টের বোটায় মুখ লাগিয়ে চুষতে থাকে। রমা আর সহ্য করতে পারে না। সাকিরের মাথাটি বুকের মধ্যে চেপে ধরে। সাকির তখন পেটিকোটের ভিতর হাত ঢুকিয়ে রমার আসল জায়গায় পৌছে গেছে। বেশ বড় বড় লোমের মধ্যে নাড়াচাড়া করতে করতে আরও নিচের দিকে আগায় সাকির। হঠাৎ অনুভব করে ওর হাত পিচ্ছল পানিতে ভরে গেছে। রমার নিচের অংশটুকু ভিজে চুপ চুপ করছে। সাকির ব্রেষ্ট চোষার ফলে রমা চরম উত্তোজিত হয়ে পড়ে। ও সাকিরের দন্ডটি ধরার জন্য হাত আগায়। কিন্তু সাকির প্যান্ট পরা থাকায় আর ধরতে পারে না। সাকির বুঝতে পেরে রমাকে পাজা কোলে করে বড় সোফাটাতে চিৎ করে শুইয়ে দেয়। তাড়াহুড়ো করে নিজের প্যাটটি খুলে ফেলে। এতোক্ষন বন্ধি অবস্থায় থাকা দন্ডটি ছাড়া পেয়ে সটাং করে বেরিয়ে ফোস ফোস করতে থাকে। এর মধ্যে উত্তেজিত রমা ওর পেটিকোটি খুলে পজিশন নিয়ে বেসে পড়ে। সাকির কাপড় খুলে রমার সামনে এসে দাড়াতেই রমা ওর নরম হাত দিয়ে সাকিরের উত্তেজিত দন্ডটি ধরে অবাক নয়নে দেখতে থাকে। সাকিরের দন্ডটি কি সুন্দর যেমন মোট তেমনি লম্বা আর ফরসা। অজিতের মত কালো কুচ কুচে নয়। রমা আদর করে ওর লিংগটি ধরে ওর নিজের ব্রেষ্টের সাথে মিলন ঘটায়। সাকির আর সহ্য করতে পারে না। রমাকে জাপটে ধরে শুয়ে পড়ে। রমা সাকিরকে বলে- আর পারছি না। যা করার তাড়াতাড়ী কর।
সাকির এবার উঠে রমার পায়ের কাছে গিয়ে ওর পাদুটো ফাক করে রমার বদ্বীপটির কালো জঙ্গল মধ্যে সুরঙ্গ পথ দেখতে পায়। সাকির তাকিয়ে দেখে রমার সুরঙ্গ পথে সাদা সাদা তরল পদার্থে ফেনার মত চপ চপ করছে। ঐ অবস্থা দেখে সাকিরের দন্ডটি আবার ফোস ফোস করে ওঠে। দন্ডায়িত দন্ডটি ধরে রমার সুরঙ্গ পথে একটু নাড়া চাড়া করতেই ওর দন্ডের মন্ডুটি ভিজে যায়। এবার রমার সুরঙ্গ মুখে সাকির ওর দন্ডটি ধরে চাপ দেয়।কোন বাধা না পেয়ে এক চাপেই পুরো টা ঢুকে যায়। এরপর শুরু হয় সাকিরের মাজা দোলানী খেলা। রমা নিচে থেকে মাঝে মাঝে উপরের দিকে চাপ দিয়ে মুখে আহ্* ইস্* শব্দ করতে থাকে। সাকির তখন অনুভব করে মাল বেরিয়ে যাওয়ার সময় হয়েছে। হঠাৎ করে ও রমার যোনী থেকে ওর দন্ডটি বের করে ফেলে। রমা নিচে থেকে চেচিয়ে ওঠে-কি হলো বের করলে কেন ? সাকির বলে মজা করতে। এই বলে সাকির আবার রমার বুকে ঝাপিয়ে পড়ে ওর ব্রেষ্ট চুষতে থাকে। রমা সাকিরের মুখটি তুলে একটি চুমু দিয়ে বলে-লিক্ষিটি আর পারছি না। আমার চরম সময় এসেছে প্লিজ ঢুকাও।
সাকির রমাকে তুলে ওর কোলে বসায়। রমা বুঝতে পেরে সাকিরের দন্ডিত দন্ডটি ধরে নিজের রসে ভরা যোনির মুখে স্থাপন করে একচাপে ভিতরে ঢুকিয়ে নেয়। রমা দুহাত দিয়ে সাকিরের গলা জড়িয়ে ধরে নিযের মাজাটি উপরে নিচে করতে থাকে। সাকিরের সামনে তখন রমার ফুটন্ত দুটি দুধ নড়তে থাকে। সাকির তখন রমার একটি দুধ মুখে নিয়ে চুষতে থাকে। রমা এবার নিজের মত করে মাজা নাড়িয়ে ওর সুখ ভোগ করতে থাকে। একটু পরে রমা একটি আর্ত চিৎকার দিয়ে সাকিরকে বুকের মধ্যে এমনভাবে চেপে ধরে যে সাকিরের নিশ্বাস ফেলা বন্ধ হয়ে যায়। সাকির চেষ্টা করে কিন্তু রমাকে সরাতে পারে না। রমা ওর সমস্ত শক্তি দিয়ে সাকিরকে নিজের বুকে চেপে ধরেছে। সাকির বুঝতে পারে রমার যোনির ভিতর এখন কি হচ্ছে। তাই নিজের একটু কষ্ট হলেও রমার জন্য ও এই কষ্টটুকু মেনে নেয়। একটু পরে রমা সাকিরের চেপে ধরা মাথা ছেড়ে দিয়ে হাপাতে থাকে। সাকির রমার মুখটি ওর মুখে চেপে ধরে আদার করতে থাকে। রমার কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম দিয়েছে। সাকির ঐ ঘামের গন্ধ উপভোগ করে। একটু দম নিয়ে রমা বলে তোমার হয়েছে ? সাকির মৃদ হেসে বলে না। রমা আর্ত চিৎকার করে বলে -হায় ভগবান ?
সাকির রমাকে কোলে থেকে নামাতেই রমা লক্ষ করে সাকিরের বিরাট আকারের দন্ডটিতে সাদা সাদা তরল পদার্থে চিক চিক করছে। রমা মুগ্ধ হয়ে দেখে। এবার সাকির রমাকে সোফার পাশে দাঁড় করিয়ে ওর দিকে পিছন ফিরে পাছাটি বের করে দিতে বলে। রমা আপত্তি করে। বলে ওভাবে আমি পারবো না। সাকির মিনতি করে বলে – কিছু হবে না। তোমার কোন অসুবিধা হবে না। কি ভেবে রমা রাজি হয়। মাথাটি নামিয়ে দুহাত ভেঙ্গে সোপার উপর উবু হয়ে দাঁড়ায়। সাকির পিছন দিক থেকে রমার ধব ধবে পাছাটি ধরে আদার করে ওর মাজার উপরে চাপ দেয়। এবার রমার পাছাটি আরও ফাঁক হয়ে পিছনের দিকে সরে আসে। সাকির এমনটিই চেয়েছিল। এবার রমার যোনির মুখটি দেখা যাচ্ছে। সাকিরের বুভুক্ষ দন্ডটি এবার রমার পিছন দিক দিয়ে রসে ভরা যোনির মুখে স্থাপন করে ধীরে ধীরে চাপ দেয় সাকির। রমা কিছু বলে না। সাকির পুরোটা ঢুকিয়ে এবার বার বার রমার মাজা ধরে নিজের মাজা দোলাতে থাকে। রমার যোনিপথটি পিচ্ছল তরল পদার্থে ভিজে থাকায় চপ্* চপ্* আওয়াজ বেরোতে থাকে। ঐ আওয়াজে সাকির আরও পাগলের মত বেশী করে মাজা দোলাতে থাকে। সাকির এবার রমার পিঠের উপর দিয়ে দুবোগলের পাশ দিয়ে রমার ব্রেষ্ট দুটি ধরে পিটতে থাকে। রমা পিঠের উপর চাপ সহ্য করতে না পেরে সোফায় উবু হয়ে শুয়ে পড়ে। সাথে সাথে সাকিরও রমার উপর পড়ে। ঠিক ঐ সময়ই সাকির ও রমা অনুভব করে সাকিরের দন্ড থেকে গল গল করে তরল পদার্থ বেরিয়ে এসে ভরে দেয় রমার যোনি। ওভাবে কিছুন থেকে উঠে পড়ে সাকির। একটু রেষ্ট নিয়ে বাথরুমের দিকে পা বাড়ায় সাকির। রমা আরও কিছুন ঐ ভাবে পড়ে থেকে পরে উঠে কাপড় পড়ে নেয়।
সাকির বাথরুম থেকে ফিট বাবু হয়ে বেরিয়ে এসে সোফায় বসে। রমা এরই মধ্যে সাকিরের জন্য এক গ্লাস লেবুর ঠান্ডা শরবত হাতে নিয়ে ঘরে ঢুকে। শরবত দেখে সাকির খুব খুশি হয়। বলে-এ জন্যই তোমাদে্র এতো ভাললাগে। কখন কি প্রয়োজন তা তোমরা ঠিক বুঝতে পার। রমা কিছু বলে না। শুধু মিষ্টি করে একটু হাসে। সাকির এক চুমুকে শরবতটুকু খেয়ে বলে এবার আসি ?
রমা মুখে কিছু বলে না, শুধু ঘাড় নেড়ে সায় দেয়। সাকির দাঁড়ায় বের হওয়ার জন্য। একটু এগিয়ে আবার ফি্রে দাড়িয়ে বলে-কিছু মনে করলে না তো ?
রমা তখনও কিছু বলে না। শুধু এগিয়ে এসে সাকিরের গালে একটি চুমু দেয়। সাকির সব বুঝতে পারে। ও রমাকে জড়িয়ে ধরে ওর মিষ্টি ঠোটে আরও একটি চুমু দিয়ে বলে-তোমাকে কোন দিন ভুলব না।
সাকির বেরিয়ে গেলে রমা দরজাটা লাগিয়ে এসে ওর বিছানায় চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ে। চোখ বন্ধ করে ভাবতে থাকে-আহ্* কি সুখ। আজ কত দিন হয় ওদের বিয়ে হয়েছে কিন্তু এর আগে কোন দিন এমন সুখ পায়নি। নর-নারীর মিলনে এতো সুখ রমা ভাবতেই পারেনি। অনেকন ধরে ও সাকিরের শরীরের গরম অনুভব করে।
হঠাৎ পাশে তাকিয়ে দেখে ছেলেটি ঘুমিয়ে আছে। উঠে পড়লে আর কাজ করতে পারবে না। তখনই ঝাড়া দিয়ে উঠে বাথরুমে ঢুকে সাওয়ারের ছেড়ে গুন গুন করে গান গাইতে থাকে। এমন আনন্দ যেন আর কখুনও পায়নি রমা। খুব সুন্দর করে গোসল সেরে বেরিয়ে এসে আয়নার সামনে দাঁড়ায় রমা। ও যেন এক নতুন রমা। ওর নিজের কাছেই ওকে ভাললাগে। সিঁথিতে সিদুর দিতে দিতে অজিতের কথা মনে পড়ে। মনটা খারাপ হয়ে যায়। তাড়াতাড়ী রান্না ঘরে যায়।
বিকেলে অজিত বাসায় ফেরে। খাওয়া দাওয়া সেরে অজিত বিছানায় গিয়ে আরাম করে। এরই মধ্যে বাচ্চাটাও অজিতের কাছে গিয়ে খেলা শুরু করেছে। রমা কাজ সেরে গুন গুন করে গান গাইতে গাইতে ঘরে ঢুকে। অজিত রমার মুখে গান শুনে বলে-কি ব্যাপার আজ মন এতো খুশি ? লটারীর টাকা পেয়েছ নাকি ?
হঠাৎ অজিতের মনে পড়ে টাকার কথা। বলে-রমা সাকির এসেছিল নাকি ?
রমা আচমকা সাকিরের নাম শুনে ঘাবড়িয়ে যায়। কি বলবে ? মিথ্যা বলবে ?
হা এসেছিল।
আহ্* বাঁচা গেল। টাকাটা দিয়ে গেছে তো ?
কিসের টাকা ? রমা অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করে।
কয়েকদিন আগে সাকির আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা ধার নিয়েছিল। আজ দেবার কথা। দিয়েছে নিশ্চই ?
রমার মুখে কোন কথা ফোটে না। অস্ফুষ্ট কন্ঠে বলে ওঠে-হাঁ।

============================
Note : Writer of the story unknown. collected from net.
============================
সাকির রমাকে কোলে থেকে নামাতেই রমা লক্ষ করে সাকিরের বিরাট আকারের দন্ডটিতে সাদা সাদা তরল পদার্থে চিক চিক করছে। রমা মুগ্ধ হয়ে দেখে। এবার সাকির রমাকে সোফার পাশে দাঁড় করিয়ে ওর দিকে পিছন ফিরে পাছাটি বের করে দিতে বলে। রমা আপত্তি করে। বলে ওভাবে আমি পারবো না। সাকির মিনতি করে বলে – কিছু হবে না। তোমার কোন অসুবিধা হবে না। কি ভেবে রমা রাজি হয়। মাথাটি নামিয়ে দুহাত ভেঙ্গে সোপার উপর উবু হয়ে দাঁড়ায়। সাকির পিছন দিক থেকে রমার ধব ধবে পাছাটি ধরে আদার করে ওর মাজার উপরে চাপ দেয়। এবার রমার পাছাটি আরও ফাঁক হয়ে পিছনের দিকে সরে আসে। সাকির এমনটিই চেয়েছিল। এবার রমার যোনির মুখটি দেখা যাচ্ছে। সাকিরের বুভুক্ষ দন্ডটি এবার রমার পিছন দিক দিয়ে রসে ভরা যোনির মুখে স্থাপন করে ধীরে ধীরে চাপ দেয় সাকির। রমা কিছু বলে না। সাকির পুরোটা ঢুকিয়ে এবার বার বার রমার মাজা ধরে নিজের মাজা দোলাতে থাকে। রমার যোনিপথটি পিচ্ছল তরল পদার্থে ভিজে থাকায় চপ্* চপ্* আওয়াজ বেরোতে থাকে। ঐ আওয়াজে সাকির আরও পাগলের মত বেশী করে মাজা দোলাতে থাকে। সাকির এবার রমার পিঠের উপর দিয়ে দুবোগলের পাশ দিয়ে রমার ব্রেষ্ট দুটি ধরে পিটতে থাকে। রমা পিঠের উপর চাপ সহ্য করতে না পেরে সোফায় উবু হয়ে শুয়ে পড়ে। সাথে সাথে সাকিরও রমার উপর পড়ে। ঠিক ঐ সময়ই সাকির ও রমা অনুভব করে সাকিরের দন্ড থেকে গল গল করে তরল পদার্থ বেরিয়ে এসে ভরে দেয় রমার যোনি। ওভাবে কিছুন থেকে উঠে পড়ে সাকির। একটু রেষ্ট নিয়ে বাথরুমের দিকে পা বাড়ায় সাকির। রমা আরও কিছুন ঐ ভাবে পড়ে থেকে পরে উঠে কাপড় পড়ে নেয়।
সাকির বাথরুম থেকে ফিট বাবু হয়ে বেরিয়ে এসে সোফায় বসে। রমা এরই মধ্যে সাকিরের জন্য এক গ্লাস লেবুর ঠান্ডা শরবত হাতে নিয়ে ঘরে ঢুকে। শরবত দেখে সাকির খুব খুশি হয়। বলে-এ জন্যই তোমাদে্র এতো ভাললাগে। কখন কি প্রয়োজন তা তোমরা ঠিক বুঝতে পার। রমা কিছু বলে না। শুধু মিষ্টি করে একটু হাসে। সাকির এক চুমুকে শরবতটুকু খেয়ে বলে এবার আসি ?
রমা মুখে কিছু বলে না, শুধু ঘাড় নেড়ে সায় দেয়। সাকির দাঁড়ায় বের হওয়ার জন্য। একটু এগিয়ে আবার ফি্রে দাড়িয়ে বলে-কিছু মনে করলে না তো ?
রমা তখনও কিছু বলে না। শুধু এগিয়ে এসে সাকিরের গালে একটি চুমু দেয়। সাকির সব বুঝতে পারে। ও রমাকে জড়িয়ে ধরে ওর মিষ্টি ঠোটে আরও একটি চুমু দিয়ে বলে-তোমাকে কোন দিন ভুলব না।
সাকির বেরিয়ে গেলে রমা দরজাটা লাগিয়ে এসে ওর বিছানায় চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ে। চোখ বন্ধ করে ভাবতে থাকে-আহ্* কি সুখ। আজ কত দিন হয় ওদের বিয়ে হয়েছে কিন্তু এর আগে কোন দিন এমন সুখ পায়নি। নর-নারীর মিলনে এতো সুখ রমা ভাবতেই পারেনি। অনেকন ধরে ও সাকিরের শরীরের গরম অনুভব করে।
হঠাৎ পাশে তাকিয়ে দেখে ছেলেটি ঘুমিয়ে আছে। উঠে পড়লে আর কাজ করতে পারবে না। তখনই ঝাড়া দিয়ে উঠে বাথরুমে ঢুকে সাওয়ারের ছেড়ে গুন গুন করে গান গাইতে থাকে। এমন আনন্দ যেন আর কখুনও পায়নি রমা। খুব সুন্দর করে গোসল সেরে বেরিয়ে এসে আয়নার সামনে দাঁড়ায় রমা। ও যেন এক নতুন রমা। ওর নিজের কাছেই ওকে ভাললাগে। সিঁথিতে সিদুর দিতে দিতে অজিতের কথা মনে পড়ে। মনটা খারাপ হয়ে যায়। তাড়াতাড়ী রান্না ঘরে যায়।
বিকেলে অজিত বাসায় ফেরে। খাওয়া দাওয়া সেরে অজিত বিছানায় গিয়ে আরাম করে। এরই মধ্যে বাচ্চাটাও অজিতের কাছে গিয়ে খেলা শুরু করেছে। রমা কাজ সেরে গুন গুন করে গান গাইতে গাইতে ঘরে ঢুকে। অজিত রমার মুখে গান শুনে বলে-কি ব্যাপার আজ মন এতো খুশি ? লটারীর টাকা পেয়েছ নাকি ?
হঠাৎ অজিতের মনে পড়ে টাকার কথা। বলে-রমা সাকির এসেছিল নাকি ?
রমা আচমকা সাকিরের নাম শুনে ঘাবড়িয়ে যায়। কি বলবে ? মিথ্যা বলবে ?
হা এসেছিল।
আহ্* বাঁচা গেল। টাকাটা দিয়ে গেছে তো ?
কিসের টাকা ? রমা অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করে।
কয়েকদিন আগে সাকির আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা ধার নিয়েছিল। আজ দেবার কথা। দিয়েছে নিশ্চই ?
রমার মুখে কোন কথা ফোটে না। অস্ফুষ্ট কন্ঠে বলে ওঠে-হাঁ।
এক বিবিহিত লোক ঠিক করলো সে তার সুন্দরী সেক্রেটারির সাথে অফ-আউয়ারে কাজ করবে(উদ্দেশ্য পরিষ্কার!!!) সে কোন রকম একটা অজুহাত দাড় করিয়ে বৌ কে ম্যনেজ করলো।
তো কাজ শেষে সে তার সেক্রেটারিকে নিয়ে গেলো ডিনারে। ঘটনার পরিক্রমাই এক সময় সে সুন্দরী সেক্রেটারির নির্জন এপার্টমেন্টে এসে পৌছালো এবং “যাহবার তাই হলো!!!”
কিন্তু সেক্রেটারি ছিল অনেক বেশি“ক্রেজি”!!! উত্তেজনার বশে সে লোকটার নাকে মুখে খামছে দাগ করে দিলো। লোকটা তো বাসায় ফেরার পথে ভেবেই পাইনা বৌকে কিভাবে বোঝাবে।তো দশ-পাঁচ চিন্তা করতে করতে এক সময় সে বাসাতে আসলো। বাসাতে আসার সাথে সাথে তার আদরের কুকুর টা তার দিকে দৌড়ে আসলো। ব্যস……সাথে সাথে তার মাথাতে বুদ্ধি খেলে গেলো!!!
সে বাসার মেঝেতে পড়ে যাবার ভান করে শুয়ে পড়লো এবং চিৎকার করে বৌকে ডেকে বলল-
”বৌ বৌ দেখো তোমার কুকুর আমার কি করেছে!!!! আমার নাক মুখ তো শেষ!!!”
এক বুক দীর্ঘশ্বাস ফেলে বৌ পরম স্বস্তির হাসি হেসে বলে-
“আরে ওইটা তো কিছুই না। দেখো তোমার কুকুর আমার কি করেছে”
এই বলে বৌ তার খামছি আর দাগে ভরা বক্ষ যুগল বের করে দেখালো!!!!!!!

============================
Note : Writer of the story unknown. collected from net.
============================
Reply




Best Indian Adult Forum Free Desi Porn Videos XXX Desi Nude Pics Desi Hot Glamour Pics Indian Sex Website
Free Adult Image Hosting Indian Sex Stories Desi Adult Sex Stories Hindi Sex Kahaniya Tamil Sex Stories
Telugu Sex Stories Marathi Sex Stories Bangla Sex Stories Hindi Sex Stories English Sex Stories
Incest Sex Stories Mobile Sex Stories Porn Tube Sex Videos Desi Indian Sex Stories Sexy Actress Pic Albums